মাগুরায় ৫০ হিন্দু বাড়িতে ইসলাম ধর্ম গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে চিঠি: উদ্বেগ-আতঙ্ক

 Posted on

দলিতকন্ঠ ডেস্ক : মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার চরগোয়ালদাহ ও মালাইনগর গ্রামে ১৯ মার্চ শুক্রবার রাতের আঁধারে ৫০টির বেশি হিন্দু বাড়িতে ধর্মান্তরিত হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে চিঠি দিয়েছে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা। রাতের বেলায় পরিচয় গোপন রেখে একই ধরনের চিঠির ঘটনায় ওই এলাকায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ও আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। অজ্ঞাত ব্যক্তিদের দেয়া এ চিঠিটি ফেইসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন মহল প্রতিবাদ জানিয়েছে। শনিবার (২০ মার্চ) সকালে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারেক আল মেহেদী, শ্রীপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইয়াছিন কবির, শ্রীপুর থানা পুলিশ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ জনকে আটক করা হয়েছে।

এই চিঠি পাওয়ার কথা জানিয়ে মালাইনগর গ্রামের পল্লী চিকিৎসক দীলিপ বিশ্বাস বলেন, শুক্রবার রাতে একটি মোটরসাইকেলে করে এসে তিন অজ্ঞাত ব্যক্তি আমার বাড়িতে একটি চিঠি দিয়ে চলে যায়। পরে খাম খুলে পড়ে দেখি তাতে ধর্মান্তরিত হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার কথা বলা হয়েছে।

চর-গোয়ালদা গ্রামের চরমহেশপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জীবন মন্ডল জানান, গত রাত ৮টার দিকে তার বাড়িতে তার তিন ভাইয়ের নামে তিনটি চিঠি দেওয়া হয়। “রাত ১০টার দিকে বাড়ি গিয়ে দেখি পূজা-অর্চনা বাদ দিয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার কথা চিঠিতে লেখা আছে।”

চরমালাইনগর গ্রামের দীপ্ত বালা জানান, শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার পর পাঞ্জাবি-পাজামা পরিহিত কয়েকজন ব্যক্তি হেলমেট পরাবস্থায় বিভিন্ন বাড়ি-বাড়ি গিয়ে বাড়ির কর্তাদের নামে খামে ভরা ওই চিঠিগুলি বাড়ির সদস্যদের হাতে দিয়ে দ্রুত মোটর সাইকেলে করে এলাকা থেকে সরে পড়ে।

চরগোয়ালদা গ্রামের বিপ্লব সরকার, নির্মল সরকার, সুধারঞ্জন গোস্বামী, সাধন মন্ডল, ইন্দ্রজিত বিশ্বাস, আজয় মন্ডল, গজেন বিশ্বাস জানান, তাদের বাড়িতেও একই ধরনের চিঠি দেওয়া হয়েছে।

ওই গ্রামের ৫০টি বেশি বাড়িতে পরপর চিঠিগুলো বিতরণ করা হয়। চিঠিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওইসব ব্যক্তিকে ইসলামের দাওয়াত সম্বলিত বিভিন্ন কথা লেখা ছিল। চিঠির সবশেষে ইসলাম গ্রহণ করার আহ্বান জানানো হয় তাদের। এ ঘটনায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ও আতঙ্ক বিরাজ করছে।

শনিবার দুপুরে শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইয়াছিন কবীর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি জানান, প্রাথমিক দৃষ্টিতে চিঠির মাঝে কোন হুমকি কিংবা ধমকি পরিলক্ষিত না হলেও রাতের আঁধারে নিজেদের নাম পরিচয় গোপন করে কেন হিন্দু সম্প্রদায়ের ৫০টির বেশি বাড়িতে এ ধরনের চিঠি দেয়া হলো তা আমরা গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখছি। এ ঘটনায় এলাকায় যেন কোন বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি না হয় তার জন্য প্রশাসন সজাগ আছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে মূল পরিকল্পনাকারী চৌগাছি গ্রামে মঞ্জু বিশ্বাসের ছেলে ইউসুফ (৩৫), মহেশপুর গ্রামের ইয়াকুব মোল্যার ছেলে কুরবান (৩২), সাচিলাপুর গ্রামের আলীমুদ্দীনের ছেলে হাবিবুর রহমানকে (৪০) আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

শ্রীপুর থানার ওসি আলী আহমদ মাসুদ জানান, ঘটনা শোনার পর থেকেই পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত আছে। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ পর্যন্ত ৩ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ নিয়োজিত আছে। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে সব ধরনের নিরাপত্তা দেয়া হচ্ছে।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীপুর উপজেলা শাখার সভাপতি শিশির শিকদার ও হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের শ্রীপুর উপজেলা সভাপতি অপূর্ব মিত্র ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এ কর্মকা-ের পেছনে কোন গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে কি-না তা খতিয়ে দেখতে প্রশাসনকে আহ্বান জানিয়েছেন।

Facebook Comments