স্বপন মির্জা একুশে টেলিভিশনের শ্রেষ্ঠ প্রতিনিধি হিসেবে সংবর্ধিত

 Posted on

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
দেশের আধুনিক টেলিভিশনের পৃথিকৃত এবং প্রথম বেসরকারী টেরিষ্টোরিয়াল টিভি একুশে টেলিভিশনের সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি স্বপন মির্জা সহ ৩ সাংবাদিককে বর্ষসেরা প্রতিনিধি হিসেবে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। শনিবার টেলিভিশনে দিনভর জাতীয় প্রতিনিধি সম্মেলনে সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান রাখায় তাদের এ সম্মাননা দেয়া হয়। ইটিভির আয়োজনে এই অনুষ্ঠানে পরারাষ্ট্র মন্ত্রী পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন প্রধান অতিথি এবং সংস্কৃতি প্রতি মন্ত্রী কে এম খালিদ বিশেষ অতিথি হিসেবে সম্মাননা ক্রেষ্ট এবং প্রশংসা পত্র ৩ সাংবাদিকের হাতে তুলে দেন। অন্য দুই সংবাদ কর্মী হলেন একুশে টিভির গাজীপুর প্রতিনিধি বিকুল চক্রবর্তী ও মৌলভীবাজার প্রতিনিধি বিকুল চক্রবর্তী।
এসময় টিভির হেড অব নিউজ মোহসীন আব্বাসের সভাপতিত্বে একুশে টেলিভিশনের এমডি মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ আলী শিকদার (অবঃ), সিএনই রঞ্জন সেন, নিউজ এডিটর দেবাশীষ রায়, ন্যাশনাল ডেক্স ইনচার্জ মুশফিকা নাজনীন সহ টিভির বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।
তখন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমিন মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ ও একুশের চেতনার ধারক একুশে টেলিভিশনের বস্তু নিষ্ঠ সংবাদের ভুয়সী প্রশংসা করে বলেন, ইটিভির অতীতের সুনাম ফিরে আনতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে। মনে রাখতে হবে এই টেলিভিশনের এক সময়ের সাংবাদিকরা দেশের মিডিয়া এখন নিয়ন্ত্রন করছে। তাদের কর্মদক্ষতার গুনেই ইটিভির মর্যাদা এখনো সাড়া বিশ্বে। সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে সকলকে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে। দেশ ও মানুষের যেমন কথা বলতে হবে। তেমনী উন্নয়নেও যে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি তাও সাড়া বিশ্বকে জানাতে হবে।
তিনি মিডিয়াকে রাষ্ট্রের ৪র্থ স্তম্ভ হিসেবে আখ্যা দিয়ে বলেন, অনিয়ম, দুর্নীতি, মাদক, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধেও অতীতের মত একুশকে জোড়ালো ভুমিকা রাখতে হবে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে ষড়যন্ত্রও থেমে নেই। যখন কোন দেশ সর্বোপরী এগিয়ে যেতে থাকে তখন ষযন্ত্রকারীরাও টেনে ধরে উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ করতে চায়। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এর নজির রয়েছে। তাই আপনারা দেশের জন্য সজাগ থাকবেন। আমাদের সরকারও বিচক্ষনতা নিয়ে প্রতিবেশী দেশ গুলোর সাথে সখ্যতা নিয়ে এগিয়ে চলছে। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা আমাদের এক যোগে সবাই মিলেই গড়তে হবে।
এছাড়া অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি সংস্কৃতি মন্ত্রী কে এম খালিদ ৮ম ওয়েজ বোর্ডে টেলিভিশনের সকল কর্মচারী সাংবাতিকরাও অন্তর্ভুক্ত হবেন বলে ঘোষনা দিয়ে বলেন, একুশে টেলিভিশন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের শত জন্ম বার্ষিকীতে সাড়া দেশে যে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে তা সংস্কৃতি মন্ত্রনালয় সার্বিক সহযোগীতা করবে।

Facebook Comments