সাতক্ষীরায় বাস খাদে পড়ে নিহত ২, আহত ৭

 Posted on


রঘুনাথ খাঁ, সাতক্ষীরা ঃ একটি যাত্রীবাহি বাসকে ওভারটেক করতে যেয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে চিংড়ি ঘেরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে দু’ বাসযাত্রী নিহত ও সাতজন আহত হয়েছে। রোববার সকাল ৮টার দিকে সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়কের তালা উপজেলার শাকদাহ ব্রীজের পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদের সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
নিহতরা হলেন, সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার আড়পাঙ্গাসিয়া গ্রামের মৃত মাদার চন্দ্র মন্ডলের ছেলে রামপদ মন্ডল ও একই এলাকার মৃত বনমালী মন্ডলের ছেলে অতিঙ্কর মন্ডল।
আহতরা হলেন, খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা থানার শান্তিনগর গ্রামের মুজিবর রহমানের ছেলে ও বটিয়াঘাটা কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আরিফুল ইসলাম (১৯), বাসের হেলপার খুলনার মিলন (২৮), মকফুর রহমান (৪৮), শহীদুল ইসলাম (৪৭), সাগর হোসেন (১৮), সোলায়মান হোসেন (৩৪) ও সামছুল আরেফিন (৩৪)।
সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কলেজ ছাত্র আরিফুল ইসলাম জানান, শ্যামনগরে একটি মসজিদে যাওয়ার জন্য তিনি রোববার সকাল সাতটার দিকে খুলনা জিরো পয়েন্ট থেকে সাতক্ষীরাগামি যাত্রীবাহি বাসে (খুলনা মেট্রো-জ- ০৪-০০৬৯) ওঠেন। সকাল ৮টার দিকে খুলনা থেকে সাতক্ষীরাগামি একটি যাত্রীবাহি বাসকে সাতক্ষীরা- খুলনা সড়কের শাকদহ ব্রীজের পাশে সাতক্ষীরাগামি অপর একটি যাত্রীবাহি বাস ওভারটেক করতে যেয়ে সামনে পড়া এক সাইকেল আরোহীকে বাঁচাতে গেলে তাদের বহনকারি বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে পাশের একটি চিংড়ি ঘেরের পানিতে ডুবে যায়। ফায়ার ব্রিগেড ও পুলিশ এসে বাসের মধ্যে থাকা দু’জনের লাশ উদ্ধার করে। এছাড়া তিনিসহ আহত সাতজনকে উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
সাতক্ষীরা ফায়ার ব্রিগেড ও সিভিল ডিফেন্স এর সহকারি উপপরিচালক তারেক ভুঁইয়া জানান, আহতদের উদ্ধার করে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।
সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ শারমিন ফিরোজ বলেন, আহতদের মধ্যে পাঁচজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বাসের হেলপার মিলনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে খুলনা ৫০০ শয্যা হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। চিকিৎসাধীন আরিফুল বিপদমুক্ত।
পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী ওয়াহিদ মুর্শিদ জানান, নিহত রামপদ মণ্ডল ও অতিঙ্করের লাশ ময়না তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। দুর্ঘটনা কবলিত বাসটি উদ্ধার করা হয়েছে।

Facebook Comments