মৌলভীবাজারে চা-বাগানে সাপের কামড়ে শ্রমিকের মৃত্যু : সঠিক চিকিৎসা না করায় লাশ নিয়ে অফিস ঘেরাও

 Posted on


বিকুল চক্রবর্তী, মৌলভীবাজার প্রতিবেদক: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে সাপের কামড়ে এক চা শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় চিকিৎসার অবহেলার অভিযোগ এনে লাশ নিয়ে আড়াই ঘন্টা আন্দোলন করেন শ্রমিকরা। এ সময় দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকে শ্রীমঙ্গল কালীঘাট সড়কটি। মারা যাওয়া শ্রমিকের বাড়ি উপজেলার কালীঘাট ইউনিয়নের কাকিয়াছড়া চা বাগানে। তার নাম রঞ্জন গোয়ালা (৪৫)।

কালীঘাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রাণেশ গোয়ালা জানান, বাগানের হাসপাতালে চিকিৎসার অবহেলায় সাপের কামড়ের রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে শ্রীমঙ্গল ফিনলে চা বাগানের ফুলছড়া অফিস ভাংচুর করে। এ সময় তারা রাস্তা বন্ধ করেও রাখে পরে বাগান কর্তৃপক্ষ তার পরিবারকে সহায়তার আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয়।

এ ব্যাপারে বাগানের বাসিন্দা সুধীর গোয়ালা জানান, গত শুক্রবার ফুলচড়া কালিটিলার নিচে বাগানের কাজ করার সময় রঞ্জন গোয়ালার পায়ে একটি সাপ কামড় মাড়ে। এ সময় তার পা দিয়ে রক্ত ঝরছিলো এবং পা ফুলে যায়্ রঞ্জন সাথে সাথে অন্য শ্রমিকদের ডেকে তাকে সাপে কামড় দিয়েছে বলে জানালে তারা এসে তার পায়ে লুঙ্গির টুকরা দিয়ে বাঁধ দিয়ে প্রথমে তাদের বাগানের হাসপাতালে নিয়ে যায় পরে ফিনলের বালিশিরা হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে তিন দিন চিকিৎসার পর তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে রবিবার রাতে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধিন অবস্থায় সোমবার রাত সাড়ে ১০টায় তার মৃত্যু হয়। হাসাতালের ডাক্তার জানান, সময়মতো সাপের কামরের চিকিৎসা শুরু না করায় তার মৃত্যু হয় আর এ খবরে বাগানের শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে মঙ্গলবার সকালে লাশ নিয়ে মিছিল করে। পরে ফুলছড়া অফিসের সামানে লাশ রেখে তারা প্রতিবাদ জানায়। এ সময় উত্তেজিত শ্রমিকদের চাপাচাপিতে একটি জানালার কাচঁ ভাঙ্গে। সকাল ৬টা থেকে সকাল সাড় ৮টা পর্যন্ত বন্ধ থাকে কালিঘাট সড়ক।
খবর পেয়ে ফিনলে বালিশিরা ডিভিশনের জিএম সৈয়দ সালাউদ্দিন ঘটনাস্থলে এসে তার সৎকারের জন্য সর্বাত্মক সহযোগিতা ও তার পরিবারের সদস্যদের কাজের নিশ্চয়তা প্রদান করে শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেলে শ্রমিকরা অবরোধ তুলেনেয়।
এ ব্যপারে বালিশিরা ডিভিশনের জিএম সৈয়দ সালাউদ্দিন জানান, শ্রমিকদের আন্দোলনের খবর পেয়ে সাথে সাথেই তিনি ঘটনাস্থলে যান এবং শ্রমিকনেতাদের নিয়ে মারা যাওয়া শ্রমিক রঞ্জন এর পরিবারকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতার করার আশ্ব^াস দিয়ে লাশ সৎকারের ব্যবস্থা করেন। তিনি জানান, তার সৎকারসহ অনান্য ধর্মীয় ক্রিয়াকার্য শেষে অন্য একদিন বসে তার পরিবারের প্রয়োজন অনুযায়ী সমস্যাগুলো পুরণের ব্যবস্থা করবেন।
এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: সাজ্জাত হোসেন চৌধুরী জানান, সাপে কামরের বিষয়টি তাকে কেউ অবগত করেনি। আর বাগানের হাসপাতালে সাপে কামড়ের ভ্যাকসিন থাকার কথা নয়। তবে বিষটি তিনি দেখবেন।

Facebook Comments