বুদ্ধিজীবীরা ছিলেন সূর্য সন্তান

 Posted on


হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি বলেছেন, আমাদের বুদ্ধিজীবীরা ছিলেন সূর্য সন্তান। ১৯৭১ সালে বুদ্ধিজীবী হত্যাকান্ডে বাঙালি জাতির যে ক্ষতি হয়েছে, যে মেধাশূন্যতা তৈরী হয়েছে, তা আজও পূরণ হয়নি। তাঁদের সম্পর্কে বলে শেষ করা যাবে না। তাদের বিবেক ছিল আমাদের সম্পদ। যারা তাদেরকে হত্যা করেছে তাদের বিচার না হলেও যারা এর সাথে জড়িত তাদের বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে। সোমবার রাতে জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
এমপি আবু জাহির আরও বলেন, নিশ্চিত পরাজয় জেনে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বাঙালি বিশ্বাসঘাতকদের সহায়তায় বেছে বেছে জাতির মেধাবী সন্তানদের হত্যা করেছিল। হত্যার তালিকায় ছিলেন শিক্ষক, চিকিৎসক, আইনজীবী, সংস্কৃতিসেবী, সাংবাদিক, প্রকৌশলীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ। ঘাতকদের উদ্দেশ্য ছিল এ জাতিকে মেধাশূন্য করে ফেলা। যাতে করে দেশ স্বাধীন হলেও এই দেশ স্বাধীনতার পুরো সুফল ভোগ করতে না পারে। এই ক্ষতি কখনও পূরণ হবে না।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদেরকে উপহার দিয়েছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশ। তিনি বাঙালি জাতিকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেছিলেন। আজ জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা সে স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু দেশের উন্নয়ন অগ্রগতির চাকাকে পথরুদ্ধ করে দিতে একাত্তরের পরাজিত শক্তি নানা অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। এদের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোঃ আলমগীর চৌধুরীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সাবেক সদস্য শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান তালুকদার, আতাউর রহমান সেলিম, এডভোকেট সুলতান মাহমুদ, হুমায়ুন কবীর সৈকত, অ্যাডভোকেট আব্দুল মোছাব্বির বকুল, অ্যাডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান, মোস্তফা কামাল আজাদ রাসেল, অ্যাডভোকেট সুবীর রায়, হুমায়ুন কবীর রেজা, হাবিব খান, অ্যাডভোকেট সজল খান,জেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক বোরহান চৌধুরী, পৌর যুবলীগের আহবায়ক ডা. ইশতিয়াক রাজ চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহি।

Facebook Comments