বহরপুরে ঘরোয়া পরিবেশে পালিত হলো ঐতিহ্যবাহী রাসপূজা

 Posted on


রাজবাড়ী প্রতিনিধি ঃ শত বছরের ঐতিহ্যবাহী রাজবাড়ী জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের বহরপুর বাজারের সার্বজনীন পূজা মন্দিরে হয়ে আসছে রাস পূজা। যার জন্য এই এলাকায় আনন্দ উৎসব থাকে কমপক্ষে এক মাস। এবছর সাড়াবিশ্বে মহামারি করোনা ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় ঘরোয়া পালিত হলো বহরপুরের এ ঐতিহ্যবাহী রাস পূজা।
সোমবার উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের বহরপুর বাজার সার্বজনীন পূজা উৎযাপন কমিটির কয়েকজন জানান, শত শত বছর আগে থেকে এ এলাকায় মহা ধুমধামের সাথে রাস পূজা উৎযাপন হয়ে আসছিল। রাস পূজা উপলক্ষে বহরপুর বাজারে দুইদিনব্যাপী কবি গান, মাসব্যাপী রাস মেলা উপভোগ করতো এ এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকার লোকজন। কবি গান শুনতে আসতো জেলার প্রতিটি উপজেলার থেকে কবি গান শোনা পাগলরা। কিন্তু এ বছর করোনা প্রাদূর্ভাবের কারনে স্বল্প পরিসরে শুধুমাত্র পূজার কাজ সেড়ে আনুষ্ঠানিকতা শেষ করা হয়েছে। দীর্ঘদিন আগে বহরপুরের রাস পূজা, কবি গান, মাসব্যাপী যাত্রাপালা, সার্কাস, রাস মেলা, পুতুল নাচ, বিভিন্ন ধরনের দোকানের পসরা সাজানো হতো বহরপুরে। আনন্দ আর উল্লাস চলতো মানুষের ঘরে ঘরে। দেশে অপসাংস্কৃতি, যাত্রায় নগ্ননৃত্য আর উশৃংঙ্খল যুব সমাজের কারনে শত শত বছরের ঐতিহ্যবাহী বহরপুরের সেই রাস পূজাটি হারিয়ে যেতে বসেছে। হঠাৎ করেই পৃথিবীতে করোনা নামক মহামারী আসায় এবারে আরো স্বল্প পরিসরে রাস পূজাটি সকল আয়োজন থেকে সড়ে এসে কোনো মতো দায়সাড়াভাবে সমাপ্ত করা হলো।
বহরপুর, নারায়নপুর, শেকাড়া, বাড়াদী, বংকুর, হুলাইল, পাঁচুরিয়া, পাঁকালিয়া, গণপত্যা, সারুটিয়া, শহীদনগর, খালকুলা, আনন্দনগর, হলুদবাড়ীয়া, দিয়ারা, বাওনাড়া, রাজধরপুর, নতুননগর, আড়াবাড়ীয়াসহ বেশ কিছু এলাকার মানুষরা ক্ষন বুঝে কবিগান শুনতে বহরপুর বাজারে এসে দেখতে পায় এবার আর কবি গান হচ্ছেনা। ফিরে যাবার সময় কথা হয় অনেকের সাথেই।
এসময় তারা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার বহরপুর বাজার সার্বজনীন পূজা মন্দিরে কবিগান এবং মাসব্যাপী আনন্দ উৎসব চলতো আর তা উপভোগ করতাম। বিভিন্ন আনন্দ উৎসব নিয়ে ব্যান্ত থাকতো এই এলাকার সকল মানুষ। তবে এবার নিরবে নিভৃতে হয়ে গেল বহরপুরের ঐতিহ্যবাহী রাস পূজা।

Facebook Comments