নারায়ণগঞ্জে “অতি দরিদ্র দলিত জনগোষ্ঠীর অবস্থান এবং আমাদের করণীয়” শীর্ষক সংলাপ অনুষ্ঠিত

 Posted on


দলিতকন্ঠ ডেস্ক :; নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কনফারেন্স কক্ষে “অতি দরিদ্র দলিত জনগোষ্ঠীর অবস্থান এবং আমাদের করণীয়” শীর্ষক জেলা পর্যায়ের সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৫ নভেম্বর ২০২০ বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা শারির আয়োজনে এই সংলাপে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা বারিক, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মিঞা ফিরোজ আহমেদ খান, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা সহ: যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা নার্গিস আক্তার, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা মোঃ নাজমুল হুদা, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা সহ: শিক্ষা কর্মকর্তা গুলশান আরা বেগম ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের প্রোগ্রাম অফিসার আঞ্জুমান আরা বেগম।

এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন শারির ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক শক্তিময়ী হিরা, শারির অ্যাডভোকেসি কোঅর্ডিনেটর রঞ্জন বকসী নুপু, প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা ইভা পাল, প্রোগ্রাম অফিসার বিউটি বেপারী, সহ প্রোগ্রাম অফিসার গোবিন্দ চন্দ্র দাস, দুলালী রানী দাস এবং নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলার দলিত পঞ্চায়েত, ছায়া পঞ্চায়েত ও যুব ক্লাব প্রতিনিধিবৃন্দ।

নারায়ণগঞ্জ দলিত পঞ্চায়েত ফোরামের সভাপতি প্রদীপ চন্দ্র দাসের সভাপতিত্বে এই সংলাপ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন শারির ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক শক্তিময়ী হিরা।

প্রধান অতিথি নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা বারিক তার বক্তব্যে বলেন, একটি সমাজে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষ থাকবে। সবাইকে সাথে নিয়েই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। নারীরাই আমাদের সমাজে সবচেয়ে নির্যাতিত। যতদিন পর্যন্ত আমাদের দেশের মা-বোনদের অর্থনৈতিক মুক্তি না আসবে ততদিন পর্যন্ত আমরা প্রকৃত অর্থে স্বাধীন নই। তিনি দলিত জনগোষ্ঠীর উন্নয়নের ক্ষেত্রে তাদের সন্তানদের শিক্ষার উপর সর্বাধিক গুরুত্ব প্রদানের কথা বলেন। তিনি বলেন, একজন মা কত কষ্ট করে তার সন্তানকে লালন পালন করে বড় করে তোলেন। সেই সন্তান যাতে পরবর্তীকালে মাদক সেবন বা নেশাগ্রস্ত হতে না পারে কিংবা কিশোর গ্যাংয়ের সাথে যুক্ত হতে না পারে সেজন্য সর্বদা পরিবারের মধ্য থেকেই তার প্রতি নজর রাখতে হবে। তাদের সঠিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলতে হবে। তিনি বলেন, দলিত সমাজে মেয়েদের বাল্য বিবাহের প্রবণতা সবচেয়ে বেশি। আমাদের প্রতিজ্ঞা হোক আর যেন একটি মেয়েশিশুও বাল্যবিবাহের শিকার না হয়। সকল শিশুই যেন বিদ্যালয়মুখী হয়। তাহলেই দলিত সমাজকে উন্নয়নের মূলধারায় যুক্ত করা সম্ভব হবে।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন শারির প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা ইভা পাল।

Facebook Comments