চারটি গ্রামের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা আবেদা বেগম ও তার নৌকা

 Posted on

রাজবাড়ী প্রতিনিধি: রাজবাড়ীর চারটি গ্রামের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা আবেদা বেগম ও তার নৌকা। পঁচিশ বছর আগে তার স্বামী অসুস্থ্ হয়ে পড়লে শক্ত হাতে বৈঠা তুলে নিয়ে দায়িত্ব নেন সংসারের। স্থানীয়রা বলছেন এই নারী সমাজের জন্য উদাহরণ।
স্থানীয়রা জানান, রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দেবোগ্রাম ইউনিয়নের পিয়ার আলীর মোড় থেকে পদ্মা নদীর শাখা (কোল) পাড়ি দিয়ে যেতে হয় তেনাপচা, কাওয়াজানি, রাখালগাছি ও পিয়ার আলীর গ্রামে।
এই চারটি গ্রামের মানুষের যাতায়াতে একমাত্র ভরসা আবেদা বেগম। তার নৌকায় করেই পদ্মার শাখা নদী পার হতে হয় যাত্রীদের। পঁচিশ বছর ধরে এ দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। পঁচিশ বছর আগে স্বামী অসুস্থ্ হলে ৫ মেয়ে ও ১ ছেলে নিয়ে দিশেহারা এই নারী হাল না ছেড়ে শক্ত হাতে দায়িত্ব নেন সংসার চালানোর। বর্তমানে তিনিই একমাত্র কান্ডারি ওই চার গ্রামের বাসিন্দাদের যাতায়াতের।
আবেদা বেগমের স্বামী দেবোগ্রাম ইউনিয়নের কাওয়াজানি গ্রামের বাসিন্দা আনসার আলী বলেন, আমি দীর্ঘ্যদিন যাবৎ অসুস্থ্য হয়ে ঘরে পরে আছি। বছরের অল্প সময়েই কাজ করতে পারি। বেশির ভাগ সময়ে আমাকে বিছানায় পড়ে থাকতে হয়। আমার অসুস্থ হয়ে পড়ার পর সংসারে আয় রোজগার ও সংসার চালানোর দায়িত্ব নেয় আমার স্ত্রী। সর্বনাশা পদ্মার ভাঙ্গনে নিঃস্ব আমি, জমি জমা নেই, নৌকা চালিয়েই সংসার চালান আমার স্ত্রী আবেদা।
আবেদা বেগম বলেন, আমি পঁচিশ বছর নৌকা চালিয়ে আমার পাচটি মেয়ের মধ্যে চারটি মেয়েকে বিয়ে দিয়েছি। ছোট মেয়েটা পড়াশোনা করে অর্থের অভাবে ওর প্রাইভেট পড়াতে পারি না। তারপরও সে কিভাবে যেন পাশ করে। চলতি বছরের বন্যার ¯্রােতের কারনে নরবড়ে হয়েছে আমার আয়ের এক মাত্র সম্বল নৌকাটি। কেউ যদি আমাকে একটি নৌকা কিনে দিতো অথবা আমার নৌকাটি মেরামত করে দিত তাহলে আমি ভালোভাবে চলতে পরতাম।
এ সময় কাওয়াজানি গ্রামের ৬০ বছর বয়সী আলেয়া বেগম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেয়ে মানুষ হয়ে রাজ্য চালাচ্ছে আর আবেদা নৌকা চালালে অনেকে দোষ মনে করেন। তার নৌকায় মানুষ পার হয় নিয়মিত অনেকে টাকাও দেয় না। আজ কাল করে ঘুরাতে থাকে। অনেকে আবার বছর হিসেব করে ধান প্রদান করে। ওনি অনেক কষ্ট করে চলেন। সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার দাবী জানান তিনি।
রেড ক্রিস্টেন্ট সোসাইটি রাজবাড়ী ইউনিটের সাধারন সম্পাদক মোঃ আকরাম হোসেন বলেন, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইিটি সব সময় আর্ত মানবতার সেবায় কাজ করে। আমরা কর্মঠ আবেদা বেগমের কথা শুনলাম খবর নিয়ে কর্মঠ ওই নারীর পাশে দাড়ানো হবে। বাড়িয়ে দেওয়া হবে সহযোগিতার হাত।

Facebook Comments