গোয়ালন্দে ভোটার খুঁজতেই প্রার্থীদের যত বিড়ম্বনা

 Posted on

গোয়ালন্দ প্রতিনিধি:
গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন আগামী ২৫ জুলাই। নির্দিষ্ট সময়ের প্রায় ৪ বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে এ নির্বাচন। ইউনিয়ন দুটিতে তীব্র নদী ভাঙনের কারণে সীমান জটিলতা ও ভোটার বিন্যাস করতে এত বিলম্ব হয়। কিন্তু জটিলতা রয়েই গেছে।
সূত্রমতে, দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ভোটার সংখ্যা ৩২৪৮ জন। কিন্তু এর মধ্যে অন্তত ৫শ পরিবার গত কয়েক বছরে নদী ভাঙনের শিকার হয়ে ওয়ার্ডের বাইরে বিভিন্ন স্থানে চলে গেছেন। এ সংখ্যা প্রায় সহ¯্রাধিক। বিপুল সংখ্যক এ ভোটারের কাছে পৌছাতে প্রার্থীরা চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন। অনেকের বর্তমান অবস্থান কোথায় তাও কোন কোন প্রার্থীর জানা নেই।
একই ভাবে দৌলতদিয়ার ১নং ওয়ার্ড ও দেবগ্রাম ইউনিয়নের বিস্তৃর্ণ এলাকা নদী গর্ভে চলে যাওয়ায় শতশত পরিবার বিভিন্ন স্থানে গিয়ে নতুন বসতি গড়েছে। ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকার চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীদের ভোটারদের কাছে পৌছাতে সমস্যা হচ্ছে।
ওয়ার্ডের বাসিন্দা জুয়েল মোল্লা, খয়ের শেখ, ফারুক খান, শরিফুল ইসলামসহ অনেকেই জানান, পদ্মার ভাঙনে এই ওয়ার্ডের হাতেম মন্ডল পাড়া, নোহারী মন্ডল পাড়া, ঢল্লা পাড়া, ডাকাত পাড়া সম্পুর্ণরূপে নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। শত শত পরিবার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ড ছাড়াও পাশ্ববর্তী দেবগ্রাম, উজানচর, পৌরসভা এমনকি রাজবাড়ী সদর ও ফরিদপুরে চলে গেছে। কিন্তু তারা এখনো এখানকার ভোটার। তাদের সবার কাছে পৌছানো প্রার্থীদের পক্ষে সত্যি কষ্টকর।
জুয়েল মোল্লা জানান, আমরা গোয়ালন্দ পৌর এলাকায় গিয়ে বাড়ী করেছি। কিন্তু মনটা এ এলাকায় পড়ে আছে। সুযোগ পেলেই এলাকায় এসে নদীর পাড় দিয়ে ঘুরে যাই। নির্বাচনে পরিবারের সবাইকে নিয়ে অবশ্যই ভোট দিতে আসবো।
এ ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী বর্তমান মেম্বার বাবু মোল্লা, যুবলীগ নেতা আশরাফ আলী ও নুরাল শেখ। তাদের প্রত্যেকের দাবী সরকার যেন দ্রুতই ভাঙন প্রতিরোধের ব্যবস্থা নেন।
বাবু মোল্লা জানান, নদী ভাঙনে ভোটাররা ছন্ন ছাড়া হয়ে গেছে। খোঁজ করে করে প্রত্যেকের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করছি। দোয়া নিচ্ছি এবং ভোটের দিন ভোট দিতে আসার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।
অপর প্রার্থী আশরাফ আলী জানান, নদী ভাঙন প্রাকৃতিক সমস্যা। তারপরও আমি নির্বাচিত হলে চেয়ারম্যানের সহযোগীতায় ভাঙন প্রতিরোধের জন্য স্থানীয় এমপিসহ সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষের কাছে গিয়ে কাজ করার চেষ্টা করবো।

Facebook Comments